ঢাকা ০৩:৪৬ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এবিসি ন্যাশনাল নিউজ২৪ ইপেপার

ব্রেকিং নিউজঃ
এবার মরক্কোতে কোকাকোলা-পেপসি বয়কটের ডাক ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর পুন: চালু ও মেডিকেল কলেজ স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন সান্তাহার জংশন স্টেশানে যাত্রীরা ব্যবহার করে না রেলওয়ের ফুটওভারব্রিজ বটিয়াঘাটা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে গাছের চারা বিতরণ ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের উদ্যোগে অভিযান চালিয়ে মাদকদ্রব্য উদ্ধার ৫ জন মাদক ব্যবসায়ী ও ২জন জুয়ারু সহ গ্রেফতার ডোমারের ০৫নং বামুনিয়া ইউনিয়নের হতদরিদ্রদের মাঝে ল্যাট্রিনের রিং ও স্লাব বিতরণ র‍্যাবের যৌথ অভিযানে হত্যা মামলার এজহারনামীয় দুই আসামী গ্রেফতার বটিয়াঘাটা নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শিমুর সাথে বিসিবির সভাপতি শেখ সোহেল’র সৌজন্য সাক্ষাৎ নওগাঁয় চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডে দুই যুবক আটক কুয়েতে মাঙ্গাফ এলাকায় শ্রমিক ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, নিহত ৪১

‘শান্তিপূর্ণভাবে শারদীয় দুর্গোৎসব সম্পন্ন করায়, প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন নোয়াখালীর পুলিশ সুপার’

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১১:৫৭:৩১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ অক্টোবর ২০২২ ৪০ বার পড়া হয়েছে

রাশেদুল ইসলাম, নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি

নোয়াখালী জেলার ইতিহাসে সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ শারদীয় দুর্গোৎসব হওয়ায় প্রশংসায় ভাসছেন নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহীদুল ইসলাম। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চলছে ভূয়সী প্রশংসা। শান্তি বিরাজ করছে সকল সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মাঝে।

 

বুধবার (৫ অক্টোবর) বিকেলে প্রতিমা বিসর্জ্জনের মাধ্যমে শেষ হয় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্বোচ্চ উৎসব দুর্গোৎসব।

এরপর থেকে প্রশংসায় ভাসছেন পুলিশ সুপার।

 

২০২১ সালের ১৫ অক্টোবর শুক্রবার বিকালে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটেছিল নোয়াখালীর চৌহমুনীতে চৌমুহনী এলাকার অন্তত ১১টি পূজামণ্ডপ ও ৬টি মন্দিরে একযোগে হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এছাড়া বেগমগঞ্জের ছয়ানীতে একটি পূজামণ্ডপ, একটি কালি মন্দির ও দুর্গাপুরে একটি পূজামণ্ডপে হামলা-ভাঙচুর চালানো হয়েছিল। ২০২১ সালের ১৫ অক্টোবর শুক্রবার বিকালে চৌহমুনীর ওই ভয়াবহ ধ্বংসযজ্ঞে দুজনের প্রাণহানিসহ লুটপাট করা হয় মন্দিরগুলোর অর্থ, ভাঙচুর করা হয় মণ্ডপগুলোর সব প্রতিমা। চৌমুহনীতে মন্দির ও পূজামণ্ডপের সেই ধ্বংসযজ্ঞের ক্ষত এখনো শুকায়নি।

 

বিনয় কুমার দেবনাথ নামের এক ফেসবুক ব্যবহারকারী তার আইডিতে লিখেন, এমন পুলিশ সুপার পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। যিনি দিন-রাত এক করে দিয়ে উৎসব ঘিরে নিরাপত্তা দিয়েছেন। স্যার আপনাকে স্যালুট।

 

তমা বনিক নামের এক ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেছেন , গত বছর দুর্গাপূজায় হামলা হয়েছিলো। আমরা তাতে ঠিকমতো অংশগ্রহণ করতে পারি নাই। এবার নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে প্রশাসন। পুলিশ সুপার স্যার সব মন্দিরে মন্দিরে এসেছেন। আমরা শান্তিতে পূজা উদযাপন করেছি।

 

ছোটন দাস লিখেন, আমরা ভয়ে ছিলাম তবে নিরাপত্তা দেখে অবাক হয়েছি। আমরা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাই। বিশেষ করে পুলিশ সুপার শহীদুল ইসলাম স্যারকে ধন্যবাদ জানাই। তিনি আমাদের নোয়াখালীবাসীর জন্য গর্ব।

 

সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, জেলায় এবার ১৮০ টি পূজামণ্ডপে নান্দনিক, প্রাণবন্ত, স্বতঃস্ফূর্ত, আনন্দঘন, সার্বজনীন, উৎসবমুখর, নিরাপদ দুর্গোৎসব আয়োজনের ক্ষেত্রে কঠোর নিরাপত্তা বলয়ের সৃষ্টির মাধ্যমে সম্মানিত জনগণকে নিরাপদ সময় উপহার দেয়ায় জেলা পুলিশ নোয়াখালী’র সকল গর্বিত সদস্যকে প্রাণঢালা ও আন্তরিক অভিনন্দন।

 

শহীদুল ইসলাম আরও বলেন, সম্মানিত জনপ্রতিনিধি, বিভিন্ন সরকারি সংস্থা, রাজনৈতিক-ধর্মীয়-সামাজিক নেতৃবৃন্দ, সুশীল সমাজ, গণমাধ্যম কর্মী সর্বোপরি আয়োজকদের সক্রিয় অংশগ্রহণে সামাজিক সুরক্ষা বলয় নির্মাণের মাধ্যমে নোয়াখালী জেলার ইতিহাসে সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হওয়ায় সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি সকৃতজ্ঞ ধন্যবাদ।

 

প্রসঙ্গত, ২০২২ সালে নোয়াখালীতে ১৮০ টি মণ্ডপে দুর্গোৎসব হয়েছে। এসবে নিরাপত্তার জন্য ছিল প্রায় সহস্রাধিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

শেয়ার করুন

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

‘শান্তিপূর্ণভাবে শারদীয় দুর্গোৎসব সম্পন্ন করায়, প্রশংসার জোয়ারে ভাসছেন নোয়াখালীর পুলিশ সুপার’

আপডেট সময় : ১১:৫৭:৩১ অপরাহ্ন, রবিবার, ৯ অক্টোবর ২০২২

রাশেদুল ইসলাম, নোয়াখালী জেলা প্রতিনিধি

নোয়াখালী জেলার ইতিহাসে সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ শারদীয় দুর্গোৎসব হওয়ায় প্রশংসায় ভাসছেন নোয়াখালীর পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহীদুল ইসলাম। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চলছে ভূয়সী প্রশংসা। শান্তি বিরাজ করছে সকল সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মাঝে।

 

বুধবার (৫ অক্টোবর) বিকেলে প্রতিমা বিসর্জ্জনের মাধ্যমে শেষ হয় সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সর্বোচ্চ উৎসব দুর্গোৎসব।

এরপর থেকে প্রশংসায় ভাসছেন পুলিশ সুপার।

 

২০২১ সালের ১৫ অক্টোবর শুক্রবার বিকালে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনা ঘটেছিল নোয়াখালীর চৌহমুনীতে চৌমুহনী এলাকার অন্তত ১১টি পূজামণ্ডপ ও ৬টি মন্দিরে একযোগে হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। এছাড়া বেগমগঞ্জের ছয়ানীতে একটি পূজামণ্ডপ, একটি কালি মন্দির ও দুর্গাপুরে একটি পূজামণ্ডপে হামলা-ভাঙচুর চালানো হয়েছিল। ২০২১ সালের ১৫ অক্টোবর শুক্রবার বিকালে চৌহমুনীর ওই ভয়াবহ ধ্বংসযজ্ঞে দুজনের প্রাণহানিসহ লুটপাট করা হয় মন্দিরগুলোর অর্থ, ভাঙচুর করা হয় মণ্ডপগুলোর সব প্রতিমা। চৌমুহনীতে মন্দির ও পূজামণ্ডপের সেই ধ্বংসযজ্ঞের ক্ষত এখনো শুকায়নি।

 

বিনয় কুমার দেবনাথ নামের এক ফেসবুক ব্যবহারকারী তার আইডিতে লিখেন, এমন পুলিশ সুপার পাওয়া ভাগ্যের ব্যাপার। যিনি দিন-রাত এক করে দিয়ে উৎসব ঘিরে নিরাপত্তা দিয়েছেন। স্যার আপনাকে স্যালুট।

 

তমা বনিক নামের এক ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেছেন , গত বছর দুর্গাপূজায় হামলা হয়েছিলো। আমরা তাতে ঠিকমতো অংশগ্রহণ করতে পারি নাই। এবার নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে প্রশাসন। পুলিশ সুপার স্যার সব মন্দিরে মন্দিরে এসেছেন। আমরা শান্তিতে পূজা উদযাপন করেছি।

 

ছোটন দাস লিখেন, আমরা ভয়ে ছিলাম তবে নিরাপত্তা দেখে অবাক হয়েছি। আমরা প্রশাসনকে ধন্যবাদ জানাই। বিশেষ করে পুলিশ সুপার শহীদুল ইসলাম স্যারকে ধন্যবাদ জানাই। তিনি আমাদের নোয়াখালীবাসীর জন্য গর্ব।

 

সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে পুলিশ সুপার (এসপি) মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, জেলায় এবার ১৮০ টি পূজামণ্ডপে নান্দনিক, প্রাণবন্ত, স্বতঃস্ফূর্ত, আনন্দঘন, সার্বজনীন, উৎসবমুখর, নিরাপদ দুর্গোৎসব আয়োজনের ক্ষেত্রে কঠোর নিরাপত্তা বলয়ের সৃষ্টির মাধ্যমে সম্মানিত জনগণকে নিরাপদ সময় উপহার দেয়ায় জেলা পুলিশ নোয়াখালী’র সকল গর্বিত সদস্যকে প্রাণঢালা ও আন্তরিক অভিনন্দন।

 

শহীদুল ইসলাম আরও বলেন, সম্মানিত জনপ্রতিনিধি, বিভিন্ন সরকারি সংস্থা, রাজনৈতিক-ধর্মীয়-সামাজিক নেতৃবৃন্দ, সুশীল সমাজ, গণমাধ্যম কর্মী সর্বোপরি আয়োজকদের সক্রিয় অংশগ্রহণে সামাজিক সুরক্ষা বলয় নির্মাণের মাধ্যমে নোয়াখালী জেলার ইতিহাসে সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ শারদীয় দুর্গোৎসব অনুষ্ঠিত হওয়ায় সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি সকৃতজ্ঞ ধন্যবাদ।

 

প্রসঙ্গত, ২০২২ সালে নোয়াখালীতে ১৮০ টি মণ্ডপে দুর্গোৎসব হয়েছে। এসবে নিরাপত্তার জন্য ছিল প্রায় সহস্রাধিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

শেয়ার করুন