ঢাকা ০৩:৩০ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এবিসি ন্যাশনাল নিউজ২৪ ইপেপার

ব্রেকিং নিউজঃ
এবার মরক্কোতে কোকাকোলা-পেপসি বয়কটের ডাক ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর পুন: চালু ও মেডিকেল কলেজ স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন সান্তাহার জংশন স্টেশানে যাত্রীরা ব্যবহার করে না রেলওয়ের ফুটওভারব্রিজ বটিয়াঘাটা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে গাছের চারা বিতরণ ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের উদ্যোগে অভিযান চালিয়ে মাদকদ্রব্য উদ্ধার ৫ জন মাদক ব্যবসায়ী ও ২জন জুয়ারু সহ গ্রেফতার ডোমারের ০৫নং বামুনিয়া ইউনিয়নের হতদরিদ্রদের মাঝে ল্যাট্রিনের রিং ও স্লাব বিতরণ র‍্যাবের যৌথ অভিযানে হত্যা মামলার এজহারনামীয় দুই আসামী গ্রেফতার বটিয়াঘাটা নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শিমুর সাথে বিসিবির সভাপতি শেখ সোহেল’র সৌজন্য সাক্ষাৎ নওগাঁয় চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডে দুই যুবক আটক কুয়েতে মাঙ্গাফ এলাকায় শ্রমিক ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, নিহত ৪১

ভোট দিতে গিয়ে বাগবিতণ্ডায় জড়ালেন বরিশাল সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ।

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০২:৩১:৪৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ অক্টোবর ২০২২ ৫০ বার পড়া হয়েছে

মিয়াদ হাসান, বরিশাল জেলা প্রতিনিধি।

জেলা পরিষদ নির্বাচনে বরিশাল জেলা স্কুল কেন্দ্র ভোট দিতে গিয়ে দায়িত্বরত ইউএনওর সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়ালেন বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ। ভোটকেন্দ্রে একসঙ্গে একাধিকজনকে নিয়ে প্রবেশ না করার জন্য ইউএনও সতর্ক করতে গেলে বাগবিতণ্ডা হয়। সোমবার (১৭ অক্টোবর) সকাল ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহর ফেসবুক লাইভ থেকে জানা গেছে।

ওই ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট একেএম জাহাঙ্গীর, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু, সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র গাজী নঈমুল হোসেন লিটু, অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকন, জেলা পরিষদের সদস্য প্রার্থী মোয়াজ্জেম হোসেন চুন্নুসহ কয়েকজনকে নিয়ে কেন্দ্রের দিকে যান।

 

এ সময় ভোট কক্ষে প্রবেশের গেটে সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ নুরুল আলম অনুরোধ করেন যেন একাধিক ভোটার নিয়ে ভোট কক্ষে প্রবেশ না করেন। এরপর ভোট কক্ষের সামনে পৌঁছলে বরিশাল সদর উপজেলার ইউএনও মনিরুজ্জামান মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহকে বলেন, ভোটকেন্দ্রে একাধিক ভোটার নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না।

এ সময় মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আমি কি ঢুকছি এখানে? আমি কি ঢুকছি? কেন সিন ক্রিয়েট করতেছেন? আপনি কে? আমি কি ঢুকছি? তারপরও আপনি কথা বলতেছেন। আমি কি শিশু? স্টুপিডের মতো কথা বলেন। যেভাবে ভাবটা করেন তাতে বুঝা যায় দল বাইধা ঢুকতেছি। ভোটার হইছে ১৭৪ জন। তাহলে সমস্যা কোথায় আপনাদের?’

তখন কাউন্সিলর শেখ সাইয়েদ আহম্মেদ মান্না পাশ থেকে বলেন, ‘এখানে সবাই ভোটার, আপনি চেনেন না। আপনে বরিশালে মনে হয় নতুন।’

এ কে এম জাহাঙ্গীর ইউএনওকে বলেন, উনি বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র। আমি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবং উনি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান।

এ সময় ইউএনও বলেন, ‘চেয়ারম্যান মহোদয় আমি আপনাদের চিনি। আমি এমন কিছু বলিনি।’

মেয়র সাদিক ইউএনওকে বলেন, আমি তো ভেতরে ঢুকিনি। আসার পর থেকে আপনারা বলতেছেন। ফাইজলামি করেন আপনারা। তখন ইউএনও মনিরুজ্জমান মেয়রকে বলেন, আপনাকে কিছু বলিনি স্যার।

আর এই পুরো ঘটনা সিটি মেয়রের ফেসবুক পেজ থেকে লাইভ করা হয়। লাইভে ভোট কক্ষের ভেতরের চিত্রও দেখা গেছে। এ সময় মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ সাংবাদিকদের জবাবে বলেন আমারে জেলা পরিষদ নির্বাচনে আমাদের চেয়াম্যান প্রার্থী বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন এবং আমাদের সদস্য প্রার্থীও নির্বাচিত হবে আমরা আশাবাদী।

শেয়ার করুন

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

ভোট দিতে গিয়ে বাগবিতণ্ডায় জড়ালেন বরিশাল সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ।

আপডেট সময় : ০২:৩১:৪৬ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৭ অক্টোবর ২০২২

মিয়াদ হাসান, বরিশাল জেলা প্রতিনিধি।

জেলা পরিষদ নির্বাচনে বরিশাল জেলা স্কুল কেন্দ্র ভোট দিতে গিয়ে দায়িত্বরত ইউএনওর সঙ্গে বাগবিতণ্ডায় জড়ালেন বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আব্দুল্লাহ। ভোটকেন্দ্রে একসঙ্গে একাধিকজনকে নিয়ে প্রবেশ না করার জন্য ইউএনও সতর্ক করতে গেলে বাগবিতণ্ডা হয়। সোমবার (১৭ অক্টোবর) সকাল ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহর ফেসবুক লাইভ থেকে জানা গেছে।

ওই ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট একেএম জাহাঙ্গীর, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান সাইদুর রহমান রিন্টু, সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র গাজী নঈমুল হোসেন লিটু, অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকন, জেলা পরিষদের সদস্য প্রার্থী মোয়াজ্জেম হোসেন চুন্নুসহ কয়েকজনকে নিয়ে কেন্দ্রের দিকে যান।

 

এ সময় ভোট কক্ষে প্রবেশের গেটে সিনিয়র জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ নুরুল আলম অনুরোধ করেন যেন একাধিক ভোটার নিয়ে ভোট কক্ষে প্রবেশ না করেন। এরপর ভোট কক্ষের সামনে পৌঁছলে বরিশাল সদর উপজেলার ইউএনও মনিরুজ্জামান মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহকে বলেন, ভোটকেন্দ্রে একাধিক ভোটার নিয়ে প্রবেশ করা যাবে না।

এ সময় মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার উদ্দেশ্যে বলেন, ‘আমি কি ঢুকছি এখানে? আমি কি ঢুকছি? কেন সিন ক্রিয়েট করতেছেন? আপনি কে? আমি কি ঢুকছি? তারপরও আপনি কথা বলতেছেন। আমি কি শিশু? স্টুপিডের মতো কথা বলেন। যেভাবে ভাবটা করেন তাতে বুঝা যায় দল বাইধা ঢুকতেছি। ভোটার হইছে ১৭৪ জন। তাহলে সমস্যা কোথায় আপনাদের?’

তখন কাউন্সিলর শেখ সাইয়েদ আহম্মেদ মান্না পাশ থেকে বলেন, ‘এখানে সবাই ভোটার, আপনি চেনেন না। আপনে বরিশালে মনে হয় নতুন।’

এ কে এম জাহাঙ্গীর ইউএনওকে বলেন, উনি বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের মেয়র। আমি জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এবং উনি উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান।

এ সময় ইউএনও বলেন, ‘চেয়ারম্যান মহোদয় আমি আপনাদের চিনি। আমি এমন কিছু বলিনি।’

মেয়র সাদিক ইউএনওকে বলেন, আমি তো ভেতরে ঢুকিনি। আসার পর থেকে আপনারা বলতেছেন। ফাইজলামি করেন আপনারা। তখন ইউএনও মনিরুজ্জমান মেয়রকে বলেন, আপনাকে কিছু বলিনি স্যার।

আর এই পুরো ঘটনা সিটি মেয়রের ফেসবুক পেজ থেকে লাইভ করা হয়। লাইভে ভোট কক্ষের ভেতরের চিত্রও দেখা গেছে। এ সময় মেয়র সাদিক আব্দুল্লাহ সাংবাদিকদের জবাবে বলেন আমারে জেলা পরিষদ নির্বাচনে আমাদের চেয়াম্যান প্রার্থী বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন এবং আমাদের সদস্য প্রার্থীও নির্বাচিত হবে আমরা আশাবাদী।

শেয়ার করুন