ঢাকা ০২:১১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এবিসি ন্যাশনাল নিউজ২৪ ইপেপার

ব্রেকিং নিউজঃ
খোকসা উসাসের পক্ষে থেকে নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যানকে ফুলের শুভেচ্ছা। বগুড়ায় নারী চিকিৎসক মাত্রাতিরিক্ত ঘুমের ট্যালেট সেবনে আত্মহত্যা তিস্তা সেতুর মাঝখানে ফাটল আতঙ্কে পথযাত্রীরা। ঈমান রক্ষার দোয়া। হাফিজ মাছুম আহমদ দুধরচকী। ভারতের সঙ্গে সম্পর্ককে বিশেষ গুরুত্ব দেয় বাংলাদেশ: শেখ হাসিনা আমতলীতে বৌ-ভাতের অনুষ্ঠানে আসার পথে ব্রীজ ভেঙ্গে ৯জন নিহত ঢাকা-দিল্লি সম্পর্ক আরও গভীর করতে ৭টি নতুন সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের অভিযানে ৫ মাদক ব্যবসায়ি গ্রেফতার –মাদক উদ্ধার ! দিল্লী সফর শেষে দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী ঠাকুরগাঁওয়ের স্ত্রীর মামলার আসামি পলাতক স্বামী জাহাঙ্গীর আলম গ্রেফতার ।

দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে পলাতক সর্বহারা দলের শীর্ষ নেতাকে মিরপুর মডেল থানাধীন এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৩:০২:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১২ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩১ বার পড়া হয়েছে

 

আবু জাফর স্বাধীন
স্টাফ রিপোর্টার
এবিসি ন্যাশনাল নিউজ

জিজ্ঞাসাবাদ ও ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামী পাবনা জেলার সর্বহারা দলের “নকশাল” গঠনকালীন সদস্য হয় এবং উক্ত সংগঠনের একজন শীর্ষ নেতা হিসেবে নেতৃত্ব দিতে থাকে। আসামী ওয়ারেছ এর সর্বহারা দলের সাথে পাবনা জেলার অন্যান্য সর্বহারা দলের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রায়ই তাদের মধ্যে বিরোধ লেগে থাকত। উক্ত বিরোধের জেরে গত ০৮ আগস্ট ১৯৯৯ তারিখে গ্রেফতারকৃত ওয়ারেছ স্বদলবলে পাবনা জেলার আটঘরিয়া থানার অন্য সর্বহারা দল আব্দুল জলিল গ্রæপের সাথে আগ্নেয়াস্ত্র ও অন্যান্য ধারালো অস্ত্রে সুসজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংঘর্ষে জলিল গ্রুপের গ্রুপ লিডার আব্দুল জলিলকে ওয়ারেছ গ্রুপের গ্রুপ লিডার ওয়ারেছ নৃশংসভাবে হত্যা করে এবং আত্মগোপনে চলে যায়। উক্ত হত্যার ঘটনায় পাবনা জেলার আটঘরিয়া থানায় হত্যার প্রধান আসামী ওয়ারেছসহ অজ্ঞাতনামা মোট ১৩ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা রুজু হয়। এছাড়াও ওয়ারেছ পাবনা জেলার সাথিয়া থানার চাঞ্চল্যকর দিপু হত্যার সাথেও সরাসরি জড়িত হয়, সেই মামলায়ও সে একজন পলাতক আসামী।
১৯৯৯ সালের শেষের দিকে আত্মগোপনে থাকার জন্য ওয়ারেছ ঢাকায় চলে আসে। সে সাভারসহ ঢাকার বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে থাকে এবং পরবর্তীতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাত থেকে নিজেকে আড়াল করার জন্য কৌশলে মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে ১৩ মাস অবস্থান করে। আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় নিজের পরিচয় গোপন করার জন্য ক্রমাগতভাবে সে পেশা পরিবর্তন করে। ২০২০ সালে দেশে ফিরে সাভারে অবস্থানরত স্ত্রী-সন্তানদেরকে নিয়ে সেখানে দুধের ছানা সাপ্লাই এর কাজ শুরু করে। সর্বশেষ সাভারে মাইক্রো গাড়ীর ড্রাইভার হিসেবে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলো। আসামী ওয়ারেছ নিজ পরিচয় গোপন করে ঢাকা জেলার সাভার মডেল থানাধীন এলাকায় এসে বিবাহ করে।

গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায় যে, উক্ত আসামী ছদ্মবেশে ঢাকা মহানগরীর মিরপুর মডেল থানাধীন এলাকায় অবস্থান করছে যার প্রেক্ষিতে র‌্যাব-৪ এর একটি আভিযানিক দল আসামী ওয়ারেছকে গ্রেফতার করতে সমর্থ হয়। র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামী সর্বহারা জলিল গ্রুপের গ্রুপ লিডার আব্দুল জলিলকে হত্যা এবং দিপু হত্যা মামলার সাথে সরাসরি জড়িত বলে স্বীকার করেছে। এছাড়াও তার নামে দেশের বিভিন্ন থানায় হত্যাসহ একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানা যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামীকে সংশ্লিষ্ট থানায় হন্তান্তর করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

দীর্ঘ ২৩ বছর ধরে পলাতক সর্বহারা দলের শীর্ষ নেতাকে মিরপুর মডেল থানাধীন এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪

আপডেট সময় : ০৩:০২:০৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১২ জানুয়ারী ২০২৩

 

আবু জাফর স্বাধীন
স্টাফ রিপোর্টার
এবিসি ন্যাশনাল নিউজ

জিজ্ঞাসাবাদ ও ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গ্রেফতারকৃত আসামী পাবনা জেলার সর্বহারা দলের “নকশাল” গঠনকালীন সদস্য হয় এবং উক্ত সংগঠনের একজন শীর্ষ নেতা হিসেবে নেতৃত্ব দিতে থাকে। আসামী ওয়ারেছ এর সর্বহারা দলের সাথে পাবনা জেলার অন্যান্য সর্বহারা দলের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রায়ই তাদের মধ্যে বিরোধ লেগে থাকত। উক্ত বিরোধের জেরে গত ০৮ আগস্ট ১৯৯৯ তারিখে গ্রেফতারকৃত ওয়ারেছ স্বদলবলে পাবনা জেলার আটঘরিয়া থানার অন্য সর্বহারা দল আব্দুল জলিল গ্রæপের সাথে আগ্নেয়াস্ত্র ও অন্যান্য ধারালো অস্ত্রে সুসজ্জিত হয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। সংঘর্ষে জলিল গ্রুপের গ্রুপ লিডার আব্দুল জলিলকে ওয়ারেছ গ্রুপের গ্রুপ লিডার ওয়ারেছ নৃশংসভাবে হত্যা করে এবং আত্মগোপনে চলে যায়। উক্ত হত্যার ঘটনায় পাবনা জেলার আটঘরিয়া থানায় হত্যার প্রধান আসামী ওয়ারেছসহ অজ্ঞাতনামা মোট ১৩ জনের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা রুজু হয়। এছাড়াও ওয়ারেছ পাবনা জেলার সাথিয়া থানার চাঞ্চল্যকর দিপু হত্যার সাথেও সরাসরি জড়িত হয়, সেই মামলায়ও সে একজন পলাতক আসামী।
১৯৯৯ সালের শেষের দিকে আত্মগোপনে থাকার জন্য ওয়ারেছ ঢাকায় চলে আসে। সে সাভারসহ ঢাকার বিভিন্ন স্থানে আত্মগোপনে থাকে এবং পরবর্তীতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর হাত থেকে নিজেকে আড়াল করার জন্য কৌশলে মধ্যপ্রাচ্যের একটি দেশে ১৩ মাস অবস্থান করে। আত্মগোপনে থাকা অবস্থায় নিজের পরিচয় গোপন করার জন্য ক্রমাগতভাবে সে পেশা পরিবর্তন করে। ২০২০ সালে দেশে ফিরে সাভারে অবস্থানরত স্ত্রী-সন্তানদেরকে নিয়ে সেখানে দুধের ছানা সাপ্লাই এর কাজ শুরু করে। সর্বশেষ সাভারে মাইক্রো গাড়ীর ড্রাইভার হিসেবে জীবিকা নির্বাহ করে আসছিলো। আসামী ওয়ারেছ নিজ পরিচয় গোপন করে ঢাকা জেলার সাভার মডেল থানাধীন এলাকায় এসে বিবাহ করে।

গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে জানা যায় যে, উক্ত আসামী ছদ্মবেশে ঢাকা মহানগরীর মিরপুর মডেল থানাধীন এলাকায় অবস্থান করছে যার প্রেক্ষিতে র‌্যাব-৪ এর একটি আভিযানিক দল আসামী ওয়ারেছকে গ্রেফতার করতে সমর্থ হয়। র‌্যাবের জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামী সর্বহারা জলিল গ্রুপের গ্রুপ লিডার আব্দুল জলিলকে হত্যা এবং দিপু হত্যা মামলার সাথে সরাসরি জড়িত বলে স্বীকার করেছে। এছাড়াও তার নামে দেশের বিভিন্ন থানায় হত্যাসহ একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানা যায়।

গ্রেফতারকৃত আসামীকে সংশ্লিষ্ট থানায় হন্তান্তর করা হয়েছে।

শেয়ার করুন