ঢাকা ০৩:৩৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ২৯ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

এবিসি ন্যাশনাল নিউজ২৪ ইপেপার

ব্রেকিং নিউজঃ
এবার মরক্কোতে কোকাকোলা-পেপসি বয়কটের ডাক ঠাকুরগাঁও বিমানবন্দর পুন: চালু ও মেডিকেল কলেজ স্থাপনের দাবিতে মানববন্ধন সান্তাহার জংশন স্টেশানে যাত্রীরা ব্যবহার করে না রেলওয়ের ফুটওভারব্রিজ বটিয়াঘাটা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্যোগে গাছের চারা বিতরণ ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশের উদ্যোগে অভিযান চালিয়ে মাদকদ্রব্য উদ্ধার ৫ জন মাদক ব্যবসায়ী ও ২জন জুয়ারু সহ গ্রেফতার ডোমারের ০৫নং বামুনিয়া ইউনিয়নের হতদরিদ্রদের মাঝে ল্যাট্রিনের রিং ও স্লাব বিতরণ র‍্যাবের যৌথ অভিযানে হত্যা মামলার এজহারনামীয় দুই আসামী গ্রেফতার বটিয়াঘাটা নবনির্বাচিত চেয়ারম্যান শিমুর সাথে বিসিবির সভাপতি শেখ সোহেল’র সৌজন্য সাক্ষাৎ নওগাঁয় চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডে দুই যুবক আটক কুয়েতে মাঙ্গাফ এলাকায় শ্রমিক ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ড, নিহত ৪১

খুলনায় অসহায় নারীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোড়পূর্বক ধর্ষণ

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ১২:০৯:১৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৪ নভেম্বর ২০২২ ৪৬ বার পড়া হয়েছে

মোঃ ইকরামুল হক রাজিব

স্পেশাল ক্রাইম রিপোর্টার খুলনা বিভাগ

খুলনার এক স্বামী পরিত্যক্ত নারীকে একটি মহিলা চক্রের মাধ্যমে সু-কৌশলে ঢাকায় এনে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোড়পূর্বক একাধিকবার ধর্ষণ এবং স্ত্রী হিসেবে স্বীকৃতি চাওয়ায় প্রাণনাশের হুমকি রবিউল ইসলাম রবি নামের এক ভদ্রবেশী প্রতারকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। এই ধর্ষক, প্রতারক ও লম্পট রবিউল এর বিচার চেয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশ প্রধানের নিকট আবেদন করেছে ওই অসহায় নারী আফরোজা আক্তার মীম, পিতা-মজিদ মোল্যা, মাতা-আছিয়া বেগম,গ্রাম- হাজীগ্রাম,পোস্ট- সেনহাটি- ৯২২২, থানা-দিঘলিয়া,জেলা-খুলনা, মীম তার ভিডিও ও লিখিত এবং মৌখিক বক্তব্যে গণমাধ্যমকে জানান,সে অজয়পাড়া গ্রামের স্বামী পরিত্যক্ত গরীব অসহায় একজন নারী,গত ২১ মে ২০২২ ইং তারিখে আমার আপন চাচাতো বোন মালা বেগম,পিতা-মোঃ ইদ্রিস মোল্লা, মাতা- হামিদা বেগম, গ্রাম- হাজীগ্রাম, পোঃ-সেনহাটি-৯২২২, থানা-দিঘলিয়া, জেলা-খুলনা,এর সাথে তাহার বড় ছেলে মিজানের চাকুরী সুবাদে আমি তাদের সাথে ওই দিন বিকাল আনুমানিক ৩টার দিকে ঢাকায় আসি,ঢাকায় আসার পর মালা বেগমের ফুফাতো শ্বাশুড়ির ছেলে রবিউল ইসলাম রবি সাথে গুলিস্তান বিআরটিসি কাউন্টারের সামনে পরিচয় হয়,পরিচয় হওয়ার পর মালা বেগম এবং আমি আফরোজা আক্তার মীম রবিউল ইসলাম রবি’র ভাড়া বাসা ডাঃ হালিম প্যালেস ৬০/সি(পুরাতন)৬০/২(নতুন) রুম নাম্বার ৮/এ-১ নয়াপল্টন,ঢাকা-১০০০ যান, রবিউল ইসলাম রবির স্হানী নাম ঠিকানা : রবিউল ইসলাম রবি,পিতা- মোঃ আবুল হোসেন,মাতা-মর্জিনা বেগম,গ্রাম- সিদ্দিপাশা, ডাকঘর-সোনাতলা বাজার- ৯২১০, থানা-অভয়নগর,জেলা-যশোর, আসার পর ওই দিন মধ্য রাতে আমার চাচাতো বোন আমাকে রবিউল ইসলাম রবির রুমে তার সাথে রাএী যাপন করার জন্য বলে,আমি রবিউল ইসলাম রবি’র সাথে একই রুমে থাকতে অস্বীকৃত জানালে,মালা বেগম আমাকে বিভিন্ন ভাবে বুঝাতে চেষ্টা করে এবং রবিউল এর সাথে আমাকে পরের দিন কাজী অফিসে নিয়ে বিয়ে পড়াবে বলে জানান,ওই দিন রাএে বহু নাটকীয়তার পর পরের দিন ২২মে ২০২২ ইং তারিখে সকাল ৬টার দিকে মালা বেগম ঔষধ কিনার কথা বলে আমাকে রবিউল ইসলাম রবির বাসায় একা রেখে যায়,মালা বেগম বাসা থেকে বের হওয়ার ১০-১৫ মিনিট পর রবিউল আমার রুমে প্রবেশ করে এবং আমাকে জোরপূর্বক ধস্তাধস্তি করে আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে আমার সাথে শারিরীক সম্পর্কে লিপ্ত হয়,আমি রবিউল ইসলাম রবির এসব অনৈতিক জোরপূর্বক একাধিকবার ধর্ষণের ফলে তাৎক্ষণিক রবিউল ইসলাম রবির এহেন কর্মকাণ্ড দেখে আমি কান্নায় ভেঙ্গে পরি,সে আমাকে বিয়ে করবে বলে শান্তনা দেওয়ার চেষ্টা করে,আমি চেঁচামেচি মেচি করা অবস্থায় আমার চাচাতো বোন মালা বেগম তখন বাহির থেকে ঔষধ নিয়ে রুমে প্রবেশ করে তিনিও আমাকে বুঝানোর চেষ্টা করে, তখন এই ভাবে তর্কাতর্কির ফলে রবিউল আমাকে বিয়ে করে সংসার করার সম্মতি জানান এবং আমাকে ঢাকায় তার ভাড়া বাসায় থাকার জন্য অনুরোধ করে,আমি ওই দিন তার কথা না শোনে আমার চাচাতো বোন মালা বেগমের সাথে খুলনা উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে ফুলবাড়ীয়া বাস স্ট্যান্ডে যাই এবং বাসের টিকিট ক্রয় করে ফেলি তখন রবিউল ইসলাম রবি আমাকে তার বাসায় ফিরে যাওয়ার জন্য আমার মোবাইল ফোনে বারবার কল দিতে থাকে এবং আমাকে তার বাসায় যাওয়ার জন্য তাগিদ দেয় এবং আমাকে কাজী অফিসে নিয়ে বিয়ে করবে বলে প্রতিশ্রুতি দেয়,আমি তাৎক্ষণিক আমার চাচাতো বোন ও তার ছেলে মিজান আমার বড়ভাই আসলাম মোল্লার সাথে মিথ্যা কথা বলে মালা বেগমের সাথে বলে আমি রবিউল ইসলাম রবির কথা বিশ্বাস পুনরায় তার বাসায় যাই, বাসায় যাওয়ার পর সে আমাকে আটকিয়ে রেখে একাধারে চার দিন বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে আমাকে বিয়ে করবে বলে প্রতিদিনই আমার সাথে শারিরীক সম্পর্কে জড়ায়,আমি তার অতীতে বিয়ের ব্যপারে জানতে চাইলে রবিউল আমাকে তার আগের স্ত্রী’র সাথে সম্পর্ক নেই বলে আমাকে জানান,এই ভাবে চার দিন তার সাথে থাকার পর সে যখন বিভিন্ন অজুহাত দেখানোর চেষ্টা করে তখন আমি বুঝতে পারি সে আমার সাথে প্রতারণা করেতেছে, তাই ভেবে আমি তাৎক্ষণিক তাকে বিয়ে করে কাবিন করার চাপ- প্রয়োগ করলে সে আমার সাথে কিছু দিন পর বিয়ে করে কাবিন করবে বলে জানান, এহেন অবস্থায় আমি তার প্রতারণা মূলক কথা শোনে খুলনায় চলে যাই, খুলনা চলে যাওয়ার পর তার সাথে কিছু দিন মোবাইলে মাধ্যমে কথা হয়,যখন রবিউল ইসলাম রবিকে আমি বিয়ের কথা বলি সে আমাকে বিভিন্ন ভাবে পাশ কাটিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে এবং আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে, রবিউল ইসলাম রবি আমাকে হুমকি দিয়ে বলেন তার সাথে বেশি বাড়াবাড়ি করলে তার আর আমার শারিরীক সম্পর্কের গোপন ক্যামেরায় ধারণ কৃত ভিডিও ও ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেসবুক) সহ বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচার করে দিবে বলে আমাকে জানিয়ে হুমকি দমকি দেয়,রবিউল ইসলাম রবি আমাকে বলে আমার কাছে টাকা আছে, ক্ষমতা আছে ,তোর কি আছে,তোর মতো মেয়ে আমি প্রতিদিনই ভোগ করি,বাংলাদেশে তোর যদি কোন বাপ থাকে তাহলে আমাকে পারলে কিছু করিস,ফাজলামী করলে তোকে প্রাণে মেরে দিবো কিন্তু, এমতাবস্থায় আমি একজন নিরুপায় অসহায় নির্যাতিত নারী আমার পাশে আল্লাহ ছাড়া কেউ নেই,মীম বলেন, ভবিষ্যতে যেন আর কোন নারী এই প্রতারক লম্পট রবিউল ইসলাম রবি’র কারনে আর ধর্ষণের শিকার না হয়, আমি আপনাদের মাধ্যমে প্রতারক নারীলোভী রবিউল ইসলাম রবির দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির জন্য আকুল আবেদন জানাচ্ছি, এই বিষয়ে জানতে চেয়ে রবিউল ইসলাম রবি কে মুঠো ফোনে কল দিলে তিনি নিউজ না করার জন্য অনুরোধ করেন এবং অপরাধ বিচিত্রা অফিসে স্বশরীরে এসে লিখিত বক্তব্য দিবেন বলে জানান, কিন্তু দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করার পরও তিনি কোন বক্তব্য দেননি।

শেয়ার করুন

নিউজটি শেয়ার করুন

ট্যাগস :

খুলনায় অসহায় নারীকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোড়পূর্বক ধর্ষণ

আপডেট সময় : ১২:০৯:১৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ৪ নভেম্বর ২০২২

মোঃ ইকরামুল হক রাজিব

স্পেশাল ক্রাইম রিপোর্টার খুলনা বিভাগ

খুলনার এক স্বামী পরিত্যক্ত নারীকে একটি মহিলা চক্রের মাধ্যমে সু-কৌশলে ঢাকায় এনে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে জোড়পূর্বক একাধিকবার ধর্ষণ এবং স্ত্রী হিসেবে স্বীকৃতি চাওয়ায় প্রাণনাশের হুমকি রবিউল ইসলাম রবি নামের এক ভদ্রবেশী প্রতারকের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে। এই ধর্ষক, প্রতারক ও লম্পট রবিউল এর বিচার চেয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও পুলিশ প্রধানের নিকট আবেদন করেছে ওই অসহায় নারী আফরোজা আক্তার মীম, পিতা-মজিদ মোল্যা, মাতা-আছিয়া বেগম,গ্রাম- হাজীগ্রাম,পোস্ট- সেনহাটি- ৯২২২, থানা-দিঘলিয়া,জেলা-খুলনা, মীম তার ভিডিও ও লিখিত এবং মৌখিক বক্তব্যে গণমাধ্যমকে জানান,সে অজয়পাড়া গ্রামের স্বামী পরিত্যক্ত গরীব অসহায় একজন নারী,গত ২১ মে ২০২২ ইং তারিখে আমার আপন চাচাতো বোন মালা বেগম,পিতা-মোঃ ইদ্রিস মোল্লা, মাতা- হামিদা বেগম, গ্রাম- হাজীগ্রাম, পোঃ-সেনহাটি-৯২২২, থানা-দিঘলিয়া, জেলা-খুলনা,এর সাথে তাহার বড় ছেলে মিজানের চাকুরী সুবাদে আমি তাদের সাথে ওই দিন বিকাল আনুমানিক ৩টার দিকে ঢাকায় আসি,ঢাকায় আসার পর মালা বেগমের ফুফাতো শ্বাশুড়ির ছেলে রবিউল ইসলাম রবি সাথে গুলিস্তান বিআরটিসি কাউন্টারের সামনে পরিচয় হয়,পরিচয় হওয়ার পর মালা বেগম এবং আমি আফরোজা আক্তার মীম রবিউল ইসলাম রবি’র ভাড়া বাসা ডাঃ হালিম প্যালেস ৬০/সি(পুরাতন)৬০/২(নতুন) রুম নাম্বার ৮/এ-১ নয়াপল্টন,ঢাকা-১০০০ যান, রবিউল ইসলাম রবির স্হানী নাম ঠিকানা : রবিউল ইসলাম রবি,পিতা- মোঃ আবুল হোসেন,মাতা-মর্জিনা বেগম,গ্রাম- সিদ্দিপাশা, ডাকঘর-সোনাতলা বাজার- ৯২১০, থানা-অভয়নগর,জেলা-যশোর, আসার পর ওই দিন মধ্য রাতে আমার চাচাতো বোন আমাকে রবিউল ইসলাম রবির রুমে তার সাথে রাএী যাপন করার জন্য বলে,আমি রবিউল ইসলাম রবি’র সাথে একই রুমে থাকতে অস্বীকৃত জানালে,মালা বেগম আমাকে বিভিন্ন ভাবে বুঝাতে চেষ্টা করে এবং রবিউল এর সাথে আমাকে পরের দিন কাজী অফিসে নিয়ে বিয়ে পড়াবে বলে জানান,ওই দিন রাএে বহু নাটকীয়তার পর পরের দিন ২২মে ২০২২ ইং তারিখে সকাল ৬টার দিকে মালা বেগম ঔষধ কিনার কথা বলে আমাকে রবিউল ইসলাম রবির বাসায় একা রেখে যায়,মালা বেগম বাসা থেকে বের হওয়ার ১০-১৫ মিনিট পর রবিউল আমার রুমে প্রবেশ করে এবং আমাকে জোরপূর্বক ধস্তাধস্তি করে আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে আমার সাথে শারিরীক সম্পর্কে লিপ্ত হয়,আমি রবিউল ইসলাম রবির এসব অনৈতিক জোরপূর্বক একাধিকবার ধর্ষণের ফলে তাৎক্ষণিক রবিউল ইসলাম রবির এহেন কর্মকাণ্ড দেখে আমি কান্নায় ভেঙ্গে পরি,সে আমাকে বিয়ে করবে বলে শান্তনা দেওয়ার চেষ্টা করে,আমি চেঁচামেচি মেচি করা অবস্থায় আমার চাচাতো বোন মালা বেগম তখন বাহির থেকে ঔষধ নিয়ে রুমে প্রবেশ করে তিনিও আমাকে বুঝানোর চেষ্টা করে, তখন এই ভাবে তর্কাতর্কির ফলে রবিউল আমাকে বিয়ে করে সংসার করার সম্মতি জানান এবং আমাকে ঢাকায় তার ভাড়া বাসায় থাকার জন্য অনুরোধ করে,আমি ওই দিন তার কথা না শোনে আমার চাচাতো বোন মালা বেগমের সাথে খুলনা উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে ফুলবাড়ীয়া বাস স্ট্যান্ডে যাই এবং বাসের টিকিট ক্রয় করে ফেলি তখন রবিউল ইসলাম রবি আমাকে তার বাসায় ফিরে যাওয়ার জন্য আমার মোবাইল ফোনে বারবার কল দিতে থাকে এবং আমাকে তার বাসায় যাওয়ার জন্য তাগিদ দেয় এবং আমাকে কাজী অফিসে নিয়ে বিয়ে করবে বলে প্রতিশ্রুতি দেয়,আমি তাৎক্ষণিক আমার চাচাতো বোন ও তার ছেলে মিজান আমার বড়ভাই আসলাম মোল্লার সাথে মিথ্যা কথা বলে মালা বেগমের সাথে বলে আমি রবিউল ইসলাম রবির কথা বিশ্বাস পুনরায় তার বাসায় যাই, বাসায় যাওয়ার পর সে আমাকে আটকিয়ে রেখে একাধারে চার দিন বিভিন্ন অজুহাত দেখিয়ে আমাকে বিয়ে করবে বলে প্রতিদিনই আমার সাথে শারিরীক সম্পর্কে জড়ায়,আমি তার অতীতে বিয়ের ব্যপারে জানতে চাইলে রবিউল আমাকে তার আগের স্ত্রী’র সাথে সম্পর্ক নেই বলে আমাকে জানান,এই ভাবে চার দিন তার সাথে থাকার পর সে যখন বিভিন্ন অজুহাত দেখানোর চেষ্টা করে তখন আমি বুঝতে পারি সে আমার সাথে প্রতারণা করেতেছে, তাই ভেবে আমি তাৎক্ষণিক তাকে বিয়ে করে কাবিন করার চাপ- প্রয়োগ করলে সে আমার সাথে কিছু দিন পর বিয়ে করে কাবিন করবে বলে জানান, এহেন অবস্থায় আমি তার প্রতারণা মূলক কথা শোনে খুলনায় চলে যাই, খুলনা চলে যাওয়ার পর তার সাথে কিছু দিন মোবাইলে মাধ্যমে কথা হয়,যখন রবিউল ইসলাম রবিকে আমি বিয়ের কথা বলি সে আমাকে বিভিন্ন ভাবে পাশ কাটিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে এবং আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে, রবিউল ইসলাম রবি আমাকে হুমকি দিয়ে বলেন তার সাথে বেশি বাড়াবাড়ি করলে তার আর আমার শারিরীক সম্পর্কের গোপন ক্যামেরায় ধারণ কৃত ভিডিও ও ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম (ফেসবুক) সহ বিভিন্ন মাধ্যমে প্রচার করে দিবে বলে আমাকে জানিয়ে হুমকি দমকি দেয়,রবিউল ইসলাম রবি আমাকে বলে আমার কাছে টাকা আছে, ক্ষমতা আছে ,তোর কি আছে,তোর মতো মেয়ে আমি প্রতিদিনই ভোগ করি,বাংলাদেশে তোর যদি কোন বাপ থাকে তাহলে আমাকে পারলে কিছু করিস,ফাজলামী করলে তোকে প্রাণে মেরে দিবো কিন্তু, এমতাবস্থায় আমি একজন নিরুপায় অসহায় নির্যাতিত নারী আমার পাশে আল্লাহ ছাড়া কেউ নেই,মীম বলেন, ভবিষ্যতে যেন আর কোন নারী এই প্রতারক লম্পট রবিউল ইসলাম রবি’র কারনে আর ধর্ষণের শিকার না হয়, আমি আপনাদের মাধ্যমে প্রতারক নারীলোভী রবিউল ইসলাম রবির দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির জন্য আকুল আবেদন জানাচ্ছি, এই বিষয়ে জানতে চেয়ে রবিউল ইসলাম রবি কে মুঠো ফোনে কল দিলে তিনি নিউজ না করার জন্য অনুরোধ করেন এবং অপরাধ বিচিত্রা অফিসে স্বশরীরে এসে লিখিত বক্তব্য দিবেন বলে জানান, কিন্তু দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করার পরও তিনি কোন বক্তব্য দেননি।

শেয়ার করুন